কবি ফরিদ কবির- এর জন্মদিনে

14520544_10154646860238566_4102971806222032083_nস্থির মানসের কবি ফরিদ কবির। সকলেই কমবেশি জানে, স্থিরতা অর্জন করতে হয়, আদায় করবার বিষয় নয়। এবং তা করতে গেলে একজন ব্যক্তির, বিশেষ করে তিনি যদি কবি হতে চান, ঘামগন্ধের শ্রমে তাকে কবিতার জন্য শব্দ, চিত্রকল্প, উপমা, সর্ব অর্থে কবিতার প্রকরণ-কৌশল, কাব্যবিষয়ের যথাযথ স্থাপত্যের জন্য অর্জন করতে হয়। Continue reading “কবি ফরিদ কবির- এর জন্মদিনে”

Advertisements

রবীন্দ্রনাথের বর্ষার গান : এক আমর্ম প্রতিসরণের উদ্ভিন্ন হলফনামা :: গৌতম চৌধুরী

borsha1এল-নিনো এল-নিনো করিয়া ঢের শোরগোলের ভিতর আষাঢ়ের শুরুতেই এই বছর দক্ষিণ বাংলায় বৃষ্টি আসিয়া গেল। উত্তরে তো তাহার আগেই বানভাসির দশা। বছর বিশেক আগে অবধি যখনও আকাশবাণীর জমানা টিকিয়া ছিল, তখন এমন বর্ষায়, সেই ‘আবার এসেছে আষাঢ়’ দিয়া শুরু করিয়া, সকাল ৭.৪৫-এর রবীন্দ্রগানের হররোজের গায়ক-গায়িকারা একেবারে ‘বাদলধারা হল সারা’ ইস্তক আমাদের Continue reading “রবীন্দ্রনাথের বর্ষার গান : এক আমর্ম প্রতিসরণের উদ্ভিন্ন হলফনামা :: গৌতম চৌধুরী”

সালভাতোরে কোয়াসিমোদোর কবিতা :: অনুবাদ: আলম খোরশেদ

salvatore-quasimodoআধুনিক ঐতালিক কবিতার অন্যতম পথিকৃত সালভাতোরে কোয়াসিমোদোর জন্ম ১৯০১ সালে, সিসিলিতে। পেশায় পুরকৌশলী কোয়াসিমোদো একজন আদ্যন্ত স্বশিক্ষিত কবি। তাঁর সতীর্থ ও সমসাময়িক অপর দুই আধুনিক জ্যুসেপ্পে উনগারেত্তি ও ইউজেনিও মন্তালের মতো তিনি ঠিক সাহিত্যের প্রাতিষ্ঠানিক ছাত্র নন। তাঁর Continue reading “সালভাতোরে কোয়াসিমোদোর কবিতা :: অনুবাদ: আলম খোরশেদ”

কম্পিত বিন্দুর ধারণা : ক্ষুধার্ত মানুষের ভূগোল :: শামশাম তাজিল

ccচঞ্চল মাহমুদ আমার বন্ধু। আমি তার কবিতার ভক্ত।ব্যক্তি চঞ্চলের ভক্ত না হলেও অনুরাগী তো বটেই, বেশিরভাগ ক্ষেত্রেই তার পক্ষপাতি। তার  কম্পিত বিন্দুর ধারণা  নিয়ে লেখা এই প্রবন্ধ মোহপ্রবণ। কাজেই লেখকের নির্মোহতার বিচার এখানে অচল না বললেও অকার্যকরী! তাতে কাব্যপ্রেমীদের কবিতার রসাস্বাদনের ঘাটতি হবে না, বরং আশা করাই যায়, বিশুদ্ধতা আর বৈদগ্ধতার চিন্তা মাথায় না রেখে, আবেগের প্রশ্রয় কবিতার স্বাদ গ্রহণের পথকে আরও স্নিগ্ধতা দেবে। প্রশ্রয়াবনত মন কবিতার তুল্যমূল্যতা যথার্থরূপে নির্ধারণ করতে ব্যর্থ হলেও কবিতাকে উপলব্ধির পথে বাধা হবে না। Continue reading “কম্পিত বিন্দুর ধারণা : ক্ষুধার্ত মানুষের ভূগোল :: শামশাম তাজিল”

আন্তোনিয়োর মেঘ-এর দিকে তাকিয়ে :: আল ইমরান সিদ্দিকী

12661811_1149797075054017_1784065336806206938_nএকুশ শতকের মাত্র ষোলো বছর অতিক্রান্ত হয়েছে। একুশ শতকের এই প্রভাতবেলায়, এই স্বল্প সময়, অনেকে কবিতা লেখায় মনোযোগী হয়েছেন। সবার কবিতা পড়ার সুযোগ হয়নি আমার। তবু অনেকের কবিতাই পড়েছি। তন্মধ্যে হাতেগোনা যে পাঁচ-সাতজনের কবিতা আমাকে বিশেষভাবে টানে, অমিত চক্রবর্তী তাদেরই একজন। অমিত চক্রবর্তী তার যাপিত জীবনকে সাবলীলভাবে কবিতায় নিয়ে এসেছেন। বিভিন্ন সময়ে, বিভিন্ন জায়গায়, বিভিন্ন বিষয়ে আমার আলোচনা পড়ার পর কেউ কেউ যখন শুনেছেন অমিতের কবিতা আমার ভালো লাগে, তখন একটু অবাকই হয়েছেন। অবশ্যই পছন্দ করার পিছে কিছু কারণ আছে। যখন আমরা অস্বীকার করি, তখন আগাগোড়াই অস্বীকার করি। যা-কিছু অস্বীকার করি,  সে-সবের ভিতর থেকে যাওয়া শক্তি আর সৌন্দর্যকে একদমই বিবেচনায় না নিয়েই সেসব অস্বীকার করি।আবার, যখন আমরা অংশবিশেষের সমালোচনা করি, তখন আর কেউ এটাকে ভুল ভাবে নেয়, ধরে নেয় তুমুল অস্বীকার। অমিত চক্রবর্তী’র কবিতায় কিছু বিমূর্তধারার চিত্রকল্প আছে, কিছু পরাবাস্তবধর্মী চিত্রকল্পও আছে।আমার পাঠ-অভিজ্ঞতার কারণে অর্থাৎ দীর্ঘদিন ধরে যা দেখি, যা পড়ি, তাতে আমি বেশ ক্লান্ত
Continue reading “আন্তোনিয়োর মেঘ-এর দিকে তাকিয়ে :: আল ইমরান সিদ্দিকী”

কবি জুয়েল মাজহার-এর জন্মদিনে

994302_10200635781431817_1576857488_nটানা তিন রাত ঘুমাতে পারিনি। তিন রাত তিন অচেনা স্থানে। হঠাৎ চিৎকার, মুহূর্তেই নৈঃশব্দ্য। মানুষের চিৎকার, মানুষের নৈঃশব্দ্য। বেশ কয়েকবার খুনি কয়েদির লাল চোখের সামনে প্রার্থনাভঙ্গিতে বসা ও শ্লেটে নিজের নাম লেখার পর তা দু’হাতে উঁচিয়ে আমার মত আরও দর্শককে দেখিয়ে মাঠ পেরোলাম। যেতে যেতে বেশ কয়েক তলাবিশিষ্ট একটি ভবন দেখিয়ে এক প্রহরী বলল : যদি কেউ তোমারে শুধায়, বলবে বকুলে! বকুল সেল, কারাভ্যন্তরের সবাই চেনে। প্রহরী একটি ছোট্ট কক্ষে নিয়ে গেল। এক দুই করে গুনলাম। এগারো শিক। অচেনা একজনকে বলতে শুনলাম, ‘ভাই, আগেরটাতে চৌদ্দ ছিল!’ ছোট্ট একটি জানালাও আছে,তাতে চোখ মেললেই সবুজ-হলুদ ঘাস দেখা যায়। প্রহরী কয়েকটি কম্বল এনে দিল। কম্বলগুলোয় কেমন এক গন্ধ, বহু মানুষের ঘামের, চোখের জলের! ঘরের এক কোনায় সেই কম্বলের ওপর দুই হাঁটু বুকে চেপে শুয়ে পড়লাম। তিন দিন পর। তিন রাত পর। টের পেলাম ‘ঘুমের পোশাক গায়ে’, তবু ঘুম আসছিল না। কাঁপতে কাঁপতে আমিও কয়েক ফোঁটা জল কম্বলে মিশিয়ে দিলাম। সেই জল মিশে গেল অন্যদের জলে। শুষে নিল অভ্যস্ত কম্বল। Continue reading “কবি জুয়েল মাজহার-এর জন্মদিনে”

জীবনানন্দ দাশের ‘মৃত্যুর আগে’ ও অন্যান্য প্রসঙ্গ :: মাসুদ খান

“মৃত্যুর আগে”

showkotjamil_1405977067_1-jibonanonda-das

আমরা হেঁটেছি যারা নির্জন খড়ের মাঠে পউষ সন্ধ্যায়,
দেখেছি মাঠের পারে নরম নদীর নারী ছড়াতেছে ফুল
কুয়াশার কবেকার পাড়াগাঁর মেয়েদের মতো যেন হায়
তারা সব আমরা দেখেছি যারা অন্ধকারে আকন্দ ধুন্দুল
জোনাকিতে ভরে গেছে; যে মাঠে ফসল নাই তাহার শিয়রে
চুপে দাঁড়ায়েছে চাঁদ– কোনো সাধ নাই তার ফসলের তরে;

আমরা বেসেছি যারা অন্ধকারে দীর্ঘ শীতরাত্রিটিরে ভালো,

খড়ের চালের পরে শুনিয়াছি মুগ্ধ রাতে ডানার সঞ্চার;
পুরোনা পেঁচার ঘ্রাণ– অন্ধকারে আবার সে কোথায় হারালো!
বুঝেছি শীতের রাত অপরূপ– মাঠে মাঠে ডানা ভাসাবার
গভীর আহ্লাদে ভরা; অশত্থের ডালে ডালে ডাকিয়াছে বক;
আমরা বুঝেছি যারা জীবনের এই সব নিভৃত কুহক;

Continue reading “জীবনানন্দ দাশের ‘মৃত্যুর আগে’ ও অন্যান্য প্রসঙ্গ :: মাসুদ খান”